Space For Advertise
Space For Advertise

সর্বশেষ

যশোর, বুধবার, ২২-অক্টোবর-২০১৪ || ৭-কার্তিক-১৪২১

শীর্ষ সংবাদ - প্রথম পাতা

নাটোরে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৪১ : ২০ জনের লাশ হস্তান্তর

21-10-2014 | নাটোর সংবাদদাতা

নাটোর সংবাদদাতা॥ নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়াস্থ ঢাকা মহাসড়কের রাজ্জাকের মোড়ে দুটি যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৪১ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ২৫ জনের অধিক। সোমবার বিকেল ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে জেলার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মুন্সি শাহাবুদ্দিন জানান, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৩২ বাসযাত্রী নিহত হয়েছেন বলে জানান। তাদের লাশ নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।  তবে নিহতদের পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে। এদকিে, নাটোর জেলা প্রশাসক মশিউর রহমান ৩৩ জন নিহত হওয়ার তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।
তাৎক্ষণিক নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে, নিহতদের মধ্যে কয়েকজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হলেন নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক, আওয়ামী লীগ নেতা জামাল হোসেন (৪০), তার মেয়ে জান্নাতী (৫), একই উপজেলার বাজিতপুর গ্রামের আলাল উদ্দিন, সংগ্রামপুরের আব্দুর রহমানের স্ত্রী আতিকা বেগম, খোকসা গ্রামের কৃষ্ণপদ সরকার (৫৫), ইন্দ্রাপাড়া গ্রামের জান মোহাম্মদ (৪৮), গুরুদাসপুর উপজেলার সিধুলী গ্রামের এবাদ আলী (৪৫), শরীফ উদ্দিন (৩০), লাবু (৩৫), আলাল (৫৫), সোহরাব হোসেন, আয়নাল হক (৩৫), সতের আলী প্রামণিকের দুই ছেলে রব্বেল আলী (৪৫) ও আতাহার আলী (৫০), বৃচাপিলা গ্রামের বাবুল (৪০), আব্দুল আওয়াল (৩০), তেলটুপি গ্রামের আবু সাইদের মেয়ে মোহনা খাতুন (৫) ও অথৈ পরিবহণের চালক আলম হোসেন (৪০)।
স্থানীয় বাসিন্দা আল মামুন জানান, ঢাকা থেকে নাটোরমুখী ‘কেয়া’ পরিবহন ও স্থানীয় লোকাল বাস ‘অথৈ’ নাটোর থেকে বড়াইগ্রাম যাচ্ছিল। বাস দুটি দ্রুতগতির থাকায় সংঘর্ষের পর তা রাস্তার দু’ধারে ছিটকে পড়ে। আল মামুন আরও জানান, তিনি নিজেই ৪১টি লাশ বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ও নাটোর সদর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন। পুলিশ লাশের সংখ্যা কমিয়ে দেখানোর চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
তবে, বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলেই ২৩ যাত্রী নিহত হন। পরে আরও ৫টি লাশ উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান আরও চারজন। তিনি আরও জানান, আহতের সংখ্যা ২৫ এর অধিক। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, হতাহতদের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।
বনপাড়া মহাসড়ক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফুয়াদ হাসান দুর্ঘটনার বিষয়ে জানান, সোমবার বিকেল ৪টার দিকে মহাসড়কের রাজ্জাকের মোড় এলাকায় ‘কেয়া’ পরিবহনের বাসটির সঙ্গে অপর যাত্রীবাহী বাস ‘অথৈ’র মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। দ্রুতগতির থাকায় বাস দুটি সংঘর্ষের পর রাস্তার দু’পাশে ছিটকে পড়ে। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। আহতদের উদ্ধার করে বনপাড়ার আমেনা হাসপাতাল ও নাটোর সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। দুর্ঘটনার পর ওই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
নাটোর ফায়ার সার্ভিস, হাইওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের বড়াইগ্রাম মোড়ের অদূরে কেয়া পরিবহণের বাসটি ট্রাককে ওভারটেক করার সময় নাটোর থেকে গুরুদাসপুরগামী অথৈ পরিবহণের বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। কেয়া পরিবহণের বাসের পিছনে প্রাইভেটকারে থাকা প্রত্যক্ষদর্শী বড়াইগ্রামের ব্যবসায়ী মাজেদুল ইসলাম নয়ন বলেন, বিকট শব্দে সংঘর্ষের পর মহাসড়কের দুইপাশের গর্তে সিটকে পড়ে দুটি বাস। দুটি বাসই দুমড়ে-মুচড়ে যায়। দুর্ঘটনার পর রাস্তা ও আশপাশে আহত ও নিহতরা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকে। আহতদের আর্তচিৎকারে এলাকাবাসী তাদের উদ্ধারে ছুটে আসে। খবর পেয়ে নাটোর, লালপুর ও দয়ারামপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা, থানা এবং হাইওয়ের পুলিশ এসে এলাকাবাসীর সহায়তায় উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। আহতদের নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল, বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বনপাড়ার বেসরকারি আমিনা হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসকদের কর্মবিরতি চলছিল। তবে প্রশাসনের অনুরোধে চিকিৎসকরা সঙ্গে সঙ্গে আহতদের চিকিৎসায় নেমে পড়েন। ঘটনার পরপরই নাটোর জেলা প্রশাসক মশিউর রহমান, পুলিশ সুপার বাসদেব বণিক ও বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ একরামুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এদিকে, নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ২০ জনের লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক জানান, নিহতের স্বজনদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি থেকে লাশ হস্তান্তর করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত ২০টি লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ওসি ফুয়াদ রুহানী বলেন, দুর্ঘটনাস্থল থেকে ২২টি এবং বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিক থেকে চারটি মোট ২৬টি লাশ নিয়ে বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রাখা হয়।
নাটোর দুর্ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি
জেলার বড়াইগ্রামে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে গঠিত এ কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন নাটোরের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) ও বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার এ তথ্য জানানো হয়েছে। ওই দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোকবার্তায় মন্ত্রী বেদনাহত চিত্তে দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা ও সহমর্মিতা জানান। মন্ত্রী নিহতদের আত্মার মাগফেরাত এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

সকল সংবাদ - প্রথম পাতা

Space For Advertise
Space For Advertise
Space For Advertise
Space For Advertise
Space For Advertise
Space For Advertise